কক্সবাজারে ঝাউবন এলাকা থেকে ৫ জন ডাকাত গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১৫

নুরুল ইসলাম জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার

কক্সবাজারের সদর থানাধীন মেরিন ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন ঝাউবন এলাকা থেকে পাঁচ সদস্যের সশস্ত্র ডাকাত দল র‌্যাব-১৫ কর্তৃক গ্রেফতার
কক্সবাজার জেলায় চুরি, ডাকাতি ও ছিনতাই এর সাথে জড়িত চক্রগুলোকে আইনের আওতায় নিয়ে আসাসহ পর্যটন নগরীতে আগত দেশী-বিদেশী পর্যটক ও স্থানীয় জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করতে সার্বক্ষনিকভাবে র‌্যাবের গোয়েন্দা তৎপরতা ও নজরদারী অব্যাহত রয়েছে।
এরই ধারাবাহিকতায় গত ১০ মার্চ ২০২৪ তারিখ র‌্যাবের আভিযানিক দল গোপন সূত্রে জানতে পারে যে, কক্সবাজার জেলার সদর থানাধীন ঝিলংজা ইউনিয়নের ০১নং ওয়ার্ডস্থ শুকনাছড়ি গ্রামে মেরিন ড্রাইভ সড়কের পূর্ব পাশে জনৈক প্রফেসার কামরুল সাহেবের বাগানের ভিতর একটি সশস্ত্র ডাকাত দল ডাকাতি সংঘটনের উদ্দেশ্যে সমবেত হয়ে প্রস্তুতি গ্রহণ করছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত রাত অনুমান ০১.০০ ঘটিকার সময় র‌্যাব-১৫, সিপিএসসি’র একটি চৌকস আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনাকালে ডাকাত দলটি দিক-বিদিক পালানোর চেষ্টাকালে পাঁচজনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে গ্রেফতারকৃতদের দেহ তল্লাশী করে তাদের হেফাজত হতে ০১টি কিরিচ, ০১টি ছুরি, ০২টি স্টিলের টিপ ছোরা, ০১টি টর্চ লাইট এবং ০১টি এন্ড্রয়েড মোবাইল উদ্ধার করা হয়।
মোঃ নুরুল ইসলাম @ রুবেল @ রুইল্লা (২২), পিতা-মৃত নুর আলম, সাং-খুরুশকুল, ০৬নং ওয়ার্ড, খুরুশকুল ইউনিয়ন, সদর, কক্সবাজার।
মোঃ আক্তার হোসেন (২৮), পিতা-মৃত নুর আলম, সাং-০৬ নাম্বার, পশ্চিম পাড়া, এ/পি-নতুন বাহারছড়া, লতিফ সওদাগরের কলোনী, ০২নং ওয়ার্ড (ভাসমান), সদর, কক্সবাজার। পুবণ ঘোষ (২১), পিতা-বিশ্বনাথ ঘোষ, সাং-আদিনাথ ঠাকুর তলা, ঘোরকঘাটা, থানা-মহেশখালী, এ/পি-ঘোনারপাড়া, ইস্কন মন্দিরের দক্ষিন পাশে, ০৯নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা, সদর, কক্সবাজার। মোঃ শাকিল আহাম্মেদ (২৪), পিতা-মোঃ ইউনুস, সাং-লাইট হাউজ পাড়া, ১২নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা, সদর, কক্সবাজার।
মোঃ রফিকুল @ রফিক (২২), পিতা-মৃত কালা মিয়া, সাং-পূর্ব পাহাড়তলী, ০৭নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা, সদর, কক্সবাজার।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা একত্রে সমবেত হয়ে পরস্পর জ্ঞাতসারে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্রসহ উক্ত স্থানে ডাকাতি করার উদ্দেশ্যে প্রস্তুতি গ্রহণ করছিল বলে স্বীকার করে। তারা পর্যটন নগরী কক্সবাজারে পর্যটকদের কাছ থেকে ছুরি-ছিনতাই / ডাকাতি করে থাকে। একই সাথে স্থানীয় জনসাধারণকে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে ভয়-ভীতি প্রদর্শন এবং কখনো কখনো ছুরিকাঘাতের মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে অর্থ-কড়ি, মোবাইল ও অন্যান্য মূল্যবান সামগ্রী ছিনতাই / ডাকাতি করতো বলে জানায়। উদ্ধারকৃত আলামতসহ গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণার্থে কক্সবাজার জেলার সদর মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *